বৃহস্পতিবার, ৩০ মে ২০২৪

ম্যারাডোনার ‘চুরি’ যাওয়া গোল্ডেন বলের নিলাম থামাতে চায় তাঁর পরিবার

প্রকাশিত: ০৩:৫৮, ১৫ মে ২০২৪ | ১৭

নিলামে তোলা হচ্ছে ১৯৮৬ বিশ্বকাপে জেতা ডিয়েগো ম্যারাডোনার গোল্ডেন বল। কিন্তু প্রয়াত আর্জেন্টাইন কিংবদন্তির উত্তরাধিকারীরা এই নিলাম থামাতে মামলা করবেন। তাঁদের আইনজীবী বার্তা সংস্থা অ্যাসোসিয়েটেড প্রেসকে (এপি) জানিয়েছেন এ কথা।

আর্জেন্টিনাকে ’৮৬ বিশ্বকাপ জেতানো মহানায়কের গোল্ডেন বল ভোজবাজির মতো উধাও হয়ে গিয়েছিল! অনেক বছর ধরেই কোনো খোঁজখবর পাওয়া যাচ্ছিল না সেটির। কীভাবে নিখোঁজ হলো, সেটাও কেউ জানতেন না। কিংবদন্তির মৃত্যুর সাড়ে তিন বছর পর হারিয়ে যাওয়া সেই গোল্ডেন বল হঠাৎ করেই আলোচনায়। ফ্রান্সের নিলামকারী প্রতিষ্ঠান আগুত ম্যারাডোনার গোল্ডেন বল ফিরে পাওয়ার ঘোষণা দিয়ে জানিয়েছে, সেটি আগামী মাসে প্যারিসে নিলামে তোলা হবে।

ম্যারাডোনার উত্তরাধিকারদের পক্ষ থেকে দাবি করা হয়েছে, গোল্ডেন বল ট্রফিটি চুরি গিয়েছিল। আর এই ট্রফি নিলামে তোলার কোনো অধিকার নেই তার বর্তমান মালিকের। তাঁদের আইনজীবী জিলেস মোরেউ জানিয়েছেন, ট্রফিটি নিলাম থেকে সরিয়ে নিতে তিনি শিগগিরই প্যারিসের কাছাকাছি ন্যানতেরে বিচারিক আদালতকে জরুরি অনুরোধ জানাবেন। এপিকে তিনি আরও জানিয়েছেন, ট্রফিটি সেখান থেকে পৃথক করতে বিচারিক অনুরোধ করবেন এবং চুরি ও চুরির পর ট্রফিটি লুকিয়ে রাখার জন্য আলাদা করে অভিযোগও করবেন।

নিলামকারী প্রতিষ্ঠান আগুত জানিয়েছে, ২০১৬ প্যারিসে একটি ব্যক্তিগত সংগ্রহশালার নিলাম থেকে অন্য জিনিসপত্রের সঙ্গে ম্যারাডোনার ’৮৬ বিশ্বকাপের গোল্ডেন বলও পুনরায় পাওয়া গেছে। ’৮৬ বিশ্বকাপ ফাইনালে তৎকালীন পশ্চিম জার্মানিকে ৩-২ গোলে হারিয়ে বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল আর্জেন্টিনা। ২০২০ সালে ৬০ বছর বয়সে মারা যান ম্যারাডোনা।

আগুতের পক্ষ থেকে দাবি করা হয়, ট্রফিটি হারিয়ে যাওয়ার পর কেউ কেউ দাবি করেছিলেন, পোকার খেলায় এটি ম্যারাডোনা হারিয়েছেন কিংবা ঋণ পরিশোধে বেচে দিয়েছেন। তবে অনেকের দাবি, নেপলসের একটি ব্যাংকে ম্যারাডোনা তাঁর গোল্ডেন বল ট্রফিটি রেখেছিলেন। কিন্তু ১৯৮৯ সালে স্থানীয় দুষ্কৃতকারীরা ব্যাংকটি লুট করে। ইতালিয়ান ক্লাব নেপলসে কিংবদন্তি তকমা পাওয়া ম্যারাডোনার উত্তরাধিকারীরাও বিশ্বাস করেন, ট্রফিটি ব্যাংক থেকে খোয়া গিয়েছিল।

জিলেস মোরেউয়ের মক্কেল ম্যারাডোনার দুই মেয়ে। মোরেউ জানিয়েছেন, ম্যারাডোনার ট্রফিটি চুরি গিয়েছে—সেটা কিছুদিন আগে জানতে পারেন তাঁর মক্কেল। এই আইনজীবী জানিয়েছেন, ম্যারাডোনার পরিবার গোল্ডেন বল নিলামে তোলা থামাতে চায়। কারণ, ট্রফিটি তাঁদের বলে মনে করে ম্যারাডোনার পরিবার। মোরেউ জানিয়েছেন, ম্যারাডোনার দুই মেয়ে পরিবারের অন্যদের সঙ্গে আলাপ করে সিদ্ধান্ত নেওয়ার পর এক আর্জেন্টাইন সহকর্মী তাঁকে ব্যাপারটি জানান। এদিকে নিলামকারী প্রতিষ্ঠান আগুত দাবি করছে, অনেক বছর আগে যিনি ওই ট্রফিটা কিনেছিলেন, তিনি জানতেন না ট্রফিটা চুরি গেছে।

মোরেউ প্যারাডক্স ফার্মে কাজ করেন। এই প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে এপিকে বলা হয়েছে, ‘ফ্রেঞ্চ আইনের অধীন কোনো জিনিসের মালিক যদি সেটিকে নিজের বলে দাবি করেন, তবে সেই বিশ্বাসকে প্রশ্নবিদ্ধ করা যাবে না। তবে এই ব্যাপারটা সেই ট্রফির মালিকের ক্ষেত্রে খাটে না, যেটি বিখ্যাত ও ডিয়েগো ম্যারাডোনার কাছ থেকে চুরি গিয়েছিল এবং তাঁর উত্তরাধিকারীরা সেটি দাবি করছেন।’ মোরেউ বলেছেন, ‘বিক্রেতা ম্যারাডোনার সঙ্গে যোগাযোগ করেননি, যেটি খুব কঠিন ছিল না।’

আগুতের পক্ষ থেকে এপিকে বলা হয়েছে, ট্রফিটি নিলামে তুলতে ‘প্রয়োজনীয় সব রকম গবেষণা ও ডেটাবেজ পরীক্ষা করা হয়েছে ফরাসি ও ইতালিয়ান কর্তৃপক্ষের সাহায্য নিয়ে।’ এ বিষয়ে ম্যাক্সিমিলিয়ান আগুতো বলেছেন, ‘যেটা আমরা পেয়েছি, এখন পর্যন্ত বিক্রেতাকে চ্যালেঞ্জ জানানোর মতো প্রমাণ কেউ উপস্থাপন করতে পারেনি।’ ৬ জুন অনুষ্ঠিত এই নিলাম। নিলামে অংশগ্রহণকারীদের বলা হয়েছে দেড় লাখ ইউরো জমা দিয়ে তারপর নিলামে অংশ নিতে।

Mahfuzur Rahman

Publisher & Editor