সোমবার, ২৪ জুন ২০২৪

‘নারী নির্যাতন প্রতিরোধ ও যৌতুক নিরসনে সরকার তৎপর’

প্রকাশিত: ০৩:১২, ২৫ মে ২০২৪ | ৫১

মহিলা ও শিশুবিষয়ক প্রতিমন্ত্রী সিমিন হোসেন রিমি বলেন, নারী নির্যাতন প্রতিরোধ ও যৌতুক নিরসনে সরকার তৎপর। সেজন্য মহিলা ও শিশুবিষয়ক মন্ত্রণালয় ১৪টি ওয়ানস্টপ ক্রাইসিস সেন্টার ও ৬৭টি ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেল স্থাপন করেছে।

বৃহস্পতিবার (২৩ মে) মহিলা ও শিশুবিষয়ক প্রতিমন্ত্রীর সভাপতিত্বে নারী ও শিশু নির্যাতন প্রতিরোধ এবং যৌতুকবিরোধী কার্যক্রম পরিচালনাসংক্রান্ত সমন্বয় কমিটির সভা অনুষ্ঠিত হয়।

‘নারী-পুরুষ সমতা/ রুখতে পারে সহিংসতা’- স্লোগান নিয়ে মহিলাবিষয়ক অধিদপ্তরের সভাকক্ষে নারী পাচার, যৌন হয়রানি ও অন্য সব ধরনের শোষণ বঞ্চনা অবসানের নিমিত্তে মহিলা ও শিশুবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগের কথা বলতে গিয়ে প্রতিমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, সরকার জাতীয় পর্যায়ে একটি ডিএনএ প্রোফাইলিং ল্যাব, বিভাগীয় পর্যায়ে ৮টি ডিএনএ স্ক্রিনিং ল্যাব, টোল ফ্রি ১০৯ হেল্পলাইন, ন্যাশনাল ও রিজনাল ট্রমা কাউন্সিলিং সেন্টার, ৬টি সেল্টার হোম স্থাপন করেছে। এ ছাড়া জয় মোবাইল অ্যাপস তৈরি করেছে।

ওই সভায় নারী ও শিশু নির্যাতন বন্ধের সমন্বিত পরিকল্পনা গ্রহণ, সারা দেশে যৌতুকের বিরুদ্ধে সামাজিক আন্দোলন গড়ে তোলার নিমিত্তে সমন্বিত পরিকল্পনা গ্রহণ এবং নারী ও শিশুর প্রতি সহিংসতা প্রতিরোধে জাতীয় কর্মপরিকল্পনা ২০১৮-২০৩০ বাস্তবায়নের জন্য কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ ইত্যাদি বিষয় কমিটির সদস্যদের মধ্যে আলোচনা করা হয়।

সামাজিক নিরাপত্তা কার্যক্রম আওতায় গৃহীত কর্মসূচি সম্পর্কে প্রতিমন্ত্রী বলেন, ভিডব্লিউবি কর্মসূচির আওতায় ১০ লাখ ৪০ হাজার নারীকে প্রতি মাসে ৩০ কেজি চাল দেওয়া হচ্ছে। এমসিবিপি কর্মসূচির আওতায় সারা দেশে ১৫ লাখ ৪ হাজার জন মাকে প্রতিমাসে ৮০০ টাকা প্রদান করা হচ্ছে।

প্রতিমন্ত্রী আরও বলেন, কিশোর-কিশোরী ক্লাবের মাধ্যমে সমাজের বিভিন্নস্তরে প্রান্তিক কিশোর-কিশোরীদের লিঙ্গভিত্তিক সহিংসতা প্রতিরোধ ও বাল্যবিয়ে প্রতিরোধ, যৌতুক সম্পর্কে সচেতনতা বৃদ্ধিমূলক বিভিন্ন প্রশিক্ষণের মাধ্যমে তাদের অবস্থান শক্তিশালী করার লক্ষ্যে বর্তমানে ৪ হাজার ৮৮৩টি ক্লাব এবং ১৫০০টি হাব গঠন করা হয়েছে।

তিনি বলেন, নারী ও শিশুর প্রতি সহায়তা প্রতিরোধের জাতীয় পরিকল্পনায় মোট ৪০৩টি কার্যক্রম অন্তর্ভুক্ত হয়েছে। কর্মপরিকল্পনা অনুযায়ী নারী ও শিশু প্রতিরোধে ৩৫টি মন্ত্রণালয়/বিভাগে সুনির্দিষ্ট দায়িত্ব অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।

ওই সভায় মহিলা ও শিশুবিষয়ক সচিব নাজমা মোবারেক, মহিলাবিষয়ক অধিদপ্তরের মহাপরিচালক কেয়া খান, খাদিজাতুল আনোয়ার, সংসদ সদস্য-২৭৯, জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, অর্থ মন্ত্রণালয়, তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়, সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়, স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের প্রতিনিধিরা বক্তব্য দেন।

Mahfuzur Rahman

Publisher & Editor